ব্রেকিংঃ

ভোলার ডোমপট্রিতে কবর থেকে বা-মায়ের লাশ সরিয়ে বালু রাখার জায়গা করলেন সন্তান মোস্তফা।।

স্টাফ রিপোটার।।

মানুষ কতটা জানোয়ার হলে এমন কাজ করতে পারে বাবা-মা সহ চারটি কবর খুঁড়ে হাড়গোড় সরিয়ে অন্য জায়গায় দেয় বালির ব্যবসার জন্য, বাবা-মায়ের অকৃতজ্ঞ ও জানোয়ার সন্তান মোস্তফা।
অনুসন্ধানে জানা যায় ভোলা সদর উপজেলা বাপ্তা ইউনিয়ন ৪ নং চাচরায়, নিজের বালুর ব্যবসায় উন্নতি করার জন্য মৃত বাবা-মায়ের কবর খুঁড়ে হাড়গোড় বের করে অন্য স্থানে পুঁতেদেয় বাবা-মায়ের অকৃতজ্ঞ ও কুলাঙ্গার সন্তান মোস্তফার। মোস্তফার পিতা মৃত সালামত আলী, মাতা মৃত শামসুন্নাহার, মোস্তফার ছোটবোন মৃত কোহিনুর বেগম ও সাজনা বেগম সহ ৪ টি কবর খুঁড়ে হাড়গোড় সরিয়ে অন্য স্থানে পুঁতেদেয় কুলাঙ্গার সন্তান মোস্তফা। এলাকাবাসী জানায় কিছুদিন আগে বালুর খোলা বন্ধের দাবিতে যখন পুরো এলাকা জনগণ, মানববন্ধন ও প্রতিবাদে ফেটে পড়ে, ঠিক সেই মুহুর্তে বাবা-মায়ের এক কুলাঙ্গার সন্তান মোস্তফা প্রশাসন ও পুরো এলাকার জনগণকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে মৃত বাবা-মা সহ চার জনের কবর খুঁড়ে হাড়গোড় বের করে অন্য স্থানে পুতি দিয়ে বালুর ব্যবসা উন্নতি করার জন্য বালির খোলা তৈরি করে, এলাকাবাসী আরও জানান কয়েক বছর আগে মৃত সালামত আলী ছেলে মোস্তফা ঠেলাগাড়ি চালিয়েছে আজ হয়তো বালির ব্যবসা করে কোটি টাকার মালিক হয়েছে এর জন্য মানুষকে মানুষ মনে করে না’, আপনারা বলুন মানুষ কতটা অকৃতজ্ঞ, কুলাঙ্গার ও খারাপ হলে মৃত মা-বাবার সঙ্গে, এমন জঘন্য কাজ করতে পারে, যেই মা বাবা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে এত কষ্ট করে সন্তানদের মানুষ করেছে জায়গা জমি রেখে গেছে আজ, সেই জায়গা জমিতে হতভাগ্য বাবা-মায়ের জায়গা হলনা, তাই আমরা এলাকার জনগণ এমন কুলাঙ্গার সন্তানকে আমরা এলাকায় দেখতে চাই না, আমরা এলাকাবাসী মাননীয় পুলিশ সুপার মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি অতি দ্রুত এই হতভাগ্য বাবা-মায়ের কুলাঙ্গার সন্তান মোস্তফা কে আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।