ব্রেকিংঃ

মানবতার এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন তোফায়েল আহম্মেদ ফাউন্ডেশন।।।

এম রহমান রুবেল।

শারীরিক প্রতিবন্ধী মিজানকে নতুন অটোরিকশা উপহার দিলেন বাংলাদেশের জীবন্তকিংবদন্তী ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানের মহানায়ক সাবেক বানিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ফাউন্ডেশন।

অসহায় প্রতিবন্ধি অটোরিকশা চালিয়ে তার পরিবারের মুখে হাসি ফুটিয়ে এসেছিলেন হারিয়ে যাওয়া রিক্সাটি দিয়ে।
সম্প্রতি তার বেচে থাকার শেষ সম্বলটুকু ও রক্ষা পায়নি অটোরিকশা চোর চক্রের হাত থেকে।

উল্লেখ্য, গত ৬ই মে ভোলার যুগিরঘোল অ্যাপোলো ডায়গনস্টিক সেন্টারের সামনে বোরাকটি রেখে যোহরের নামাজ আদায় করতে গেলে প্রতিবন্ধী মিজানুর রহমানের একমাত্র আয়ের উৎস বোরাকটি নিয়ে যায় চোরচক্র।
সেই চুরির ঘটনা নিয়ে ভোলার স্থানীয় ও দেশের বিভিন্ন পিন্ট ও অনলাইন পত্রিকায় খবরটি ফলাও করে প্রকাশ হয়।
প্রকাশিত নিউজগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর আজ রবিবার [২০ই জুন] সকালে দেশের বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ জননেতা তোফায়েল আহমেদ ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে মিজানুর রহমানকে প্রায় পোনে দুই-লক্ষ টাকা সমমুল্যের ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা উপহার দিয়েছেন তার পুত্র ও ভোলা জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব মাইনুল হাসান (বিপ্লব)।
এসময় উপস্থিত ছিলেন ভোলা জেলা জেলা প্রশাসক প্রশাসক তৌফিক ই-লাহী চৌধুরী , জেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মমিন টুলু, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোশারেফ হোসেন, প্রেসক্লাব সভাপতি হাবিবুর রহমান, উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মিজানুর রহমান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইউনুছ, জেলা আ’লীগের তরুন দক্ষ সাংগঠনিক সম্পাদক সবেক বানিজ্য মন্ত্রী পুত্র মইনুল হোসেল বিপ্লব,উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল ইসলাম সহ জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন স্থরের কর্মকর্তা, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
বোরহানউদ্দিন উপজেলার হাসান নগর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের মির্জাকালু গ্রামের বাসিন্দা শারিরীক প্রতিবন্ধী মিজানুর রহমান জানান,
আমার শেষ সম্বলটুকু হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছিলাম।
ভোলার অনেক বৃত্তবান আমাকে সাহায্য করবে বলে আশ্বস্ত করলেও কেউ সাহায্যর হাত বাড়িয়ে দেন নি। সংসার চালাতে হিমসিম খেতে হয়েছে আমার।
আজ আমাকে তোফায়েল আহম্মেদ এমপি মহোদয়ের পক্ষ থেকে একটি নতুন গাড়ি কিনে দেয়া হয়েছে।
যা পেয়ে আমি সন্তুষ্ট আমার আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামিন ও খুশি।

এই উপহার অটোটি দিয়ে নিজে উপার্জন করে স্বাভাবিক জীবন-যাপন করতে পারবো।
এ সময় তিনি আবেগ আপ্লুত হয়ে কান্নাজড়িত কন্ঠে তোফায়েল আহমেদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এ বিষয়ে তোফায়েল আহম্মেদ (এমপি) মহোদয় মুঠোফোনে জানান, যে কোনো প্রয়োজনে শারিরীক প্রতিবন্ধী মিজানুর রহমানের পাশে থাকবে তোফায়েল আহমেদ ফাউন্ডেশন।