ব্রেকিংঃ

ভোলায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জামায়াতে ইসলামের ৮ নেতাকর্মীকে বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই সহ আটক করেছে পুলিশ।। ।।

স্টাফ রিপোটার।।

ভোলা জামায়াতে ইসলামের গোপন বৈঠক চলাকালে বিপুল পরিমাণ জিহাদি ও যুদ্ধ অপরাধীদের লিখিত বই সহ জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল হারুনুর রশিদসহ ৮ জামাত সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সন্ধ্যায় সদর উপজেলার ইলিশা ইউনিয়ন জংশন বাজার মাওলানা মোফাজ্জল হোসাইন স্মৃতি পরিষদ ও ইসলামি পাঠাগারে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা(এনএসআই )এর গোপন তথ্যর ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই ও যুদ্ধ অপরাধীদের লিখিত বই সহ  তাদের আটক করেছে পুলিশ।

আটকৃতরা হলেন, মো. হারুনুর রশিদ, মো. নুরুল ইসলাম, মো. বেলায়েত হোসেন, মো. আলম, মো. আকতার হোসেন, মো. আব্দুল্লাহ,  মো. রুহুল আমিন, মো. ফারুক। তারা বাংলাদেশে জামাত ইসলামের বিভিন্ন পদে রয়েছে। তাদের সকলের বাড়ি ভোলা জেলার বিভিন্ন উপজেলায়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ইলিশা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ পরিদর্শক (এসআই) মো. সিদ্দিক গনমাধ্যম কে জানান, ভারতের বিজেপি মুখপাত্র নুপুর শর্মা কর্তৃক বিশ্বনবীকে নিয়ে কটূক্তি ও ইসলাম বিরোধী মন্তব্য করার প্রতিবাদে সারাদেশের ন্যায় ভোলা জেলা মুসলিম ঐক্য পরিষদের আগামীকাল (১৭ জুন) শুক্রবার বাদ জুমা ভোলা জেলা শহরের কালিনাথ রাযের বাজার হাটখোলা জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে এক বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচি ঘোষণা করে। ওই কর্মসূচিতে জামাত-শিবিরের এজেন্টদের  অনুপ্রবেশ করে খুব বড়ধরনের নাশকতা ঘটানোর পরিকল্পনা করছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা ভোলা জেলার জামাতে ইসলামের মূল পয়েন্টে অভিযান পরিচালনা করি। আজ সন্ধ্যায় ইলিশা জংশন বাজারে একটি পাঠাগারে অভিযান পরিচালনা করে ভোলা জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল হারুনুর রশিদসহ  বিভিন্ন পর্যায়ের মোট ৮ জন নেতাকে আটক করি। এসময় আমাদের উপস্থিতি বুঝতে পেরে তাদের একাধিক সদস্য পালিয়ে যায়।

তিনি আরও জানান, নাশকতা সৃষ্টির বিষয়ে অভিযানকালে নগদ ৯ হাজার ১৩০ টাকা ও একাধিক মোবাইল ফোন, বিপুল পরিমাণ জিহাদী বই, যুদ্ধ অপরাধীদের লিখিত বই সংগঠনের চাঁদা আদায়ের রশিদ, সদস্য সংগ্রহ ফরম প্রাথমিক আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়। উদ্ধারকৃত আলামত জব্দ ও আটকদের বিষয়ে আইনগত কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে জানান তিনি।