ব্রেকিংঃ

আ’লীগের তোপের মুখে রাতের আঁধারে ভোলা ছাড়লেন এমপি হাফিজ।।

এম রহমান রুবেল ॥ রাতের আধাঁরে ভোলা ছাড়লেন বিএনপি জামাত জোট সরকারের এমপি হাফিজ ইব্রাহিম। রবিবার রাতে আওয়ামী লীগের দলীয় নেতা কর্মীদের তোপের মুখে পুলিশ প্রটোকলে হোটেল প্যাপিলিয়ন থেকে বের হয়ে লঞ্চ যোগে ঢাকা চলে যান বিএনপির এই সাবেক সংসদ।
জানা গেছে, সাবেক বাণিজ্য মন্ত্রী, ভোলা সদর আসনের এমপি ও বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক সচিব তোফায়েল আহমেদ কে নিয়ে কটুক্তি করায় হাফিজ ইব্রাহিম কে এক ঘন্টার আল্টিমেটাম দিলেন জেলা আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকিব। তার আল্টিমেটাম এর ৩০ মিনিট না যেতেই দলীয় নেতা কর্মীদের বিক্ষোভ ও উত্তেজনার তোপের মুখে রাতের আধাঁরে ভোলা ত্যাগ করে ঢাকায় চলে যেতে বাধ্য করেন ভোলা জেলা আ’লীগ সহ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা। রবিবার রাতে হাফিজ রাতের আধঁরে আওয়ামী লীগের তোপের মুখে ভোলা ছেড়ে ঢাকা চলে যাওয়ায় আনন্দে সোমবার সকালে ভোলা জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে একটি আনন্দ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এসময় আনন্দ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন জেলা আ’লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকিব, এনামুল হক আরজু, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সফিকুল ইসলাম প্রমুখ। এছাড়াও উপস্থিত উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল ইসলাম, পৌর আ’লীগ সাধারন সম্পাদক শাহ আলী নেওয়াজ পলাশ, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক যুগ্ন আহ্বায়ক মুজাহিদুল ইসলাম তুহিন, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন,জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রাইহান আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক হিমেল মাহমুদ, সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সদস্য এম রহমান রুবেল, জেলা যুব লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগ, তাতীলীগ সহ ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও সম্পাদক এবং চেয়ারম্যানবৃন্দগণ।
এসময় সাবেক এমপি হাফিজ কে ভোলা ছাড়তে বাধ্য করায় শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিন করে আনন্দ মিছিল করেন ভোলা জেলা আ’লীগ। এসময় জেলা আ’লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকিব ও এনামুল হক আরজু তাদের বক্তব্য বলেন, ২০০১ পরবর্তীতে ভোলাতে সন্ত্রাস এর রাজত্ব কায়েম করে আওয়ামীলীগ এর নেতা কর্মী ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর অমানবিক নির্যাতন নীপিড়নের নির্দেশদাতা হাফিজ ইব্রাহীম জাতীয় নেতা সাবেক বানিজ্য মন্ত্রী ভোলার গর্ব জননেতা তোফায়েল আহমেদ এম পি মহোদয়কে নিয়ে কটুক্তি করার প্রতিবাদে জেলা আওয়ামীলীগ এর নেতৃত্বে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ করি অবশেষে তাকে ভোলা ছাড়তে আমরা ভোলা জেলা আওয়ামী বাধ্য করতে সক্ষম হয়েছি।
বক্তরা আরো বলেন, বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে একটা আওয়ামী লীগ কর্মী পিটাইলে দুই টন গম দিয়েছে এই কুখ্যাত কাজে বিখ্যাত হাফিজ ইব্রাহিম এবং ভোলার অসংখ্য মা বোনের ইজ্জত নস্ট করেছে পুকুরের মাছ, বাড়ির গাঁছ, গোয়ালের গরু, বিলের ধান তার নির্দেশে এক হত্যা যজ্ঞের কান্ড ঘটিয়েছে এই হাফিজ। আমরা ভোলাবাসি শান্তিতে আছি কুখ্যাত কাজে বিখ্যাত হাফিজ ভোলায় এসেছে শান্তি প্রিয় মানুষগুলোর ঘুম ভাঙ্গানোর চেস্টা করছে। তার এই স্বপ্ন কখনো পূরন হবে না এটা তার দুর স্বপ্ন।